অত্যাবশ্যকীয় জরুরী পরিষেবা বিল বাতিলসহ বিএলএফ’র ১০ দফা

মহান জাতীয় সংসদে উত্থাপিত অত্যাবশ্যকীয় জরুরী পরিষেবা বিল বাতিল, বাংলাদেশ রেলওয়ে রানিং স্টাফদের মাইলেজ ভাতা বন্ধের প্রতিবাদ ও রেলওয়ে ত্রুটিপূর্ণ নিয়োগ বিধি -২০২০ সংশোধন, নির্মাণ শ্রমিকদের কাজের সময় জীবনের নিরাপত্তা, শীপ ব্রেকিং শিল্প শ্রমিকদের জন্য ঘোষিত ন্যূনতম মজুরি ১৬০০০ টাকা বাস্তবায়ন, গার্মেন্টস শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি ২৩০০০ টাকা, সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ সংশোধন, মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশনা অনুসরণ করে গাড়ি রিকুইজিশন, প্রতিটি সেক্টরে কর্মরত শ্রমিকদের নিয়োগপত্র -পরিচয়পত্র প্রদান,শ্রম আইন বিরোধী আউট সোর্সিং নিয়োগ বন্ধ ও দ্রুততম সময়ে মজুরি বোর্ড গঠন করে দ্রব্যমূল্যের সাথে সঙ্গতি রেখে জাতীয় ন্যূনতম মজুরি ২০ হাজার টাকা ঘোষণা করার দাবি।

শনিবার সকালে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন সাংবাদিক ইউনিয়নের হলরুমে বাংলাদেশ লেবার ফেডারেশন বিএলএফ’র সংবাদ সম্মেলনে এই সব দাবী জানান ।

সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ লেবার ফেডারেশন বিএলএফ চট্টগ্রাম মহানগর কমিটির সভাপতি নুরুল আবছার তৌহিদ লিখিত বক্তব্যে বলেন, শ্রমিকরা এদেশের অর্থনীতির চালিকা শক্তি। শ্রমিকদের অধিকার হরণ করে দেশ এগিয়ে যেতে পারে না। দেশে বর্তমানে প্রায় ৭ কোটি শ্রমিক রয়েছে। যাদের ৮৫ ভাগই অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতে কর্মরত। ইপিজেডসহ নতুন নতুন গড়ে ওঠা শিল্প কারখানায় আইনি বাধা ও সাংগঠনিক দুর্বলতার কারণে ট্রেড ইউনিয়ন গড়ে উঠছে না। ফলে শ্রমিকরা সংখ্যায় বাড়লেও সাংগঠনিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়ছে। বাজার দরের সাথে সংগতি রেখে বাঁচার মতো মজুরি নির্ধারণের কথা উঠলেই সামনে আনা হচ্ছে বিভিন্ন অজুহাত। শ্রমিকদের দীর্ঘদিনের দাবি জাতীয় ন্যূনতম মজুরি নির্ধারণের বিষয় নিয়ে চলছে দীর্ঘসূত্রীতা, শ্রমিকদের সংগঠন গড়ার ও করার স্বাধীনতাকে নানাভাবে সংকুচিত করা হচ্ছে। অবস্থা দেখে মনে হয় আমরা সেই পুরনো দাস প্রথাই ফিরে যাচ্ছি। অগণতান্ত্রিক ধারাগুলো বাতিল করে গণতান্ত্রিক শ্রমবান্ধব আইন প্রবর্তন করা, শ্রমিকদের পেশাগত স্বাস্থ্য সুরক্ষা, কর্মের পরিবেশ ও সামাজিক নিরাপত্তা, কর্মক্ষেত্রে নিহত ও আহতদের ন্যায্য ক্ষতিপূরণ নিশ্চিত করার জোর দাবী জানিয়েছেন ।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ লেবার ফেডারেশন বিএলএফ’র কেন্দ্রীয়, বিভাগীয়, জেলা, মহানগর কমিটির ও বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিএলএফ’র কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক শাকিল আক্তার চৌধুরী, বিলস্ এর চট্টগ্রামের চেয়ারম্যান এ এম নাজিম উদ্দিন,বিএফটিইউসির চট্টগ্রাম অঞ্চলের সভাপতি কাজী আনোয়ারুল হক, বিভাগীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রিজওয়ানুর রহমান খাঁন, চট্টগ্রাম জেলার সাধারণ সম্পাদক কে এম শহিদুল্লাহ, শ ম জামাল উদ্দিন, জাতীয়তাবাদী রেল শ্রমিক ও কর্মচারী দলের সাধারণ সম্পাদক এম আর মঞ্জু, বাংলাদেশ জাতীয় শ্রমিক দল চট্টগ্রাম বিভাগের দপ্তর সম্পাদক রফিকুল ইসলাম, বিএলএফ কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নুরুল আবছার ভূঁইয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ রবিউল হক শিমুল, চট্টগ্রাম মহানগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক আবু আহমেদ মিয়া, যুগ্ম সম্পাদক হাজী আলমগীর হোসেন, সাইফুল ইসলাম শাহীন, চট্টগ্রাম জেলা কমিটির সহ-সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, বঙ্গবন্ধু শিল্পাঞ্চলের সভাপতি মফিজুর রহমান, চট্টগ্রাম জেলা কমিটির যুগ্ম সম্পাদক সামছুল ইসলাম আরজু, জেলা মহিলা কমিটির সভাপতি গোলজার বেগম, মহানগর কমিটির সভাপতি মুক্তা শেখ মুক্তি, যুগ্ম সম্পাদক আমেনা বেগম, চট্টগ্রাম বিভাগীয় যুব কমিটির সভাপতি মো. আমির হোসেন, জেলা যুব কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি এমএ এমন ইউ হেলাল ও জেলা যুব কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো. হানিফ প্রমুখ।

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on linkedin
LinkedIn
Share on email
Email

সম্পকিত খবর