নতুন ব্রীজ এলাকার ত্রাস কথিত শ্রমিক নেতা জানে আলমের কুটির জোর কোথায়

নগরীর শাহ্ আমানত সেতু (নতুন ব্রীজ) এলাকার মূর্তিমান আতংক চট্টগ্রাম অটো টেম্পু শ্রমিক ইউনিয়নের কথিত নেতা চাঁদাবাজ, কিশোর গ্যাং এর হোতা একাধিক মামলার আসামী জানে আলমের কুটির জোর কোথায়?

১৭নং রোডের অটো টেম্পু শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জানে আলমের অত্যাচারে অতিষ্ঠ বাকলিয়া থানার আওতাধীন চাকতাই নতুনব্রীজ এলাকার বাসিন্দা, সাধারণ ব্যবসায়ীরা, এলাকার অসংখ্য স্কুল কলেজগামী ছাত্রীরা তার কিশোর গ্যাং কর্তৃক ইভটিজিং এর শিকার হয়ে ঘরে বন্ধি হয়ে আছে। তার কিশোর গ্যাং, চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কার্যকলাপের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করায় এলাকার বহু তরুণকে মিথ্যা মামলায় হয়রানীর শিকার হতে হয়েছে।

জানে আলমের বিরুদ্ধে নগরী ও জেলার বিভিন্ন থানায় রয়েছে একাধিক নারী নির্যাতন, চাঁদাবাজী, জবর দখলের মামলা, এসব মামলায় একাধিকবার কারাভোগ করে জামিনে এসে আবারও পুরানো কায়দায় তার আধিপত্য বজায় রেখে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড জালিয়ে যাচ্ছে।

৩৫নং বক্সির হাট ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাজী নুরুল হক, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি জাহাঙ্গীর আলমসহ যুবলীগ, ছাত্রলীগ পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দ, ব্যবসায়ী সমিতির সিএমপি কমিশনার বরাবরে একাধিক অভিযোগ আবেদন করেও কোন প্রতিকার পাইনি।

জানে আলমের টাকার কাছে বিক্রি হয়ে কোন প্রতিকার করছেনা চট্টগ্রাম অটো টেম্পু শ্রমিক ইউনিয়ন এর জেলা সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক এমন অভিযাগ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সংগঠনের সদস্যদের।

তাদের দাবী জানে আলমের অপসারণের দাবীতে ১৭নং রোড শ্রমিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের কোন সাড়া পাচ্ছে না। দিন দিন জানে আলমের দৌরাত্ম বেঁড়েই চলেছে। সে প্রশাসন স্থানীয় জন প্রতিনিধি, সরকার দলীয় নেতা কাউকে পাত্তা দিচ্ছে না, দিন দিন তার সন্ত্রাসী কার্যকলাপ আরও বেড়ে চলছে। গত ২৪ সেপ্টেম্বার বাংলাদেশ টিম্বার নামক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে গভীর রাতে জবর দখলের উদ্দেশ্যে জোর পূর্বক প্রবেশ ও প্রতিষ্ঠানের দাড়োয়ান রাজুসহ কর্মচারীদের উপর হামলা এবং লুটপাটের অভিযোগে বাকলিয়া থানায় সন্ত্রাসী জানে আলমসহ অজ্ঞাত ১৫/২০ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন বাংলাদেশ টিম্বারের মালিক নজরুল ইসলাম। এই মামলায় পুলিশ এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করতে পারে নাই। এলাকাবাসী ও সাধারণ ব্যবসায়ীদের দাবী কেন কোন অদৃশ্য শক্তির বলে জানে আলম বার বার সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালানোর সাহস পায়? সে কি আইনের উর্ধ্বে? ভুক্তভোগিরা অবিলম্বে জানে আলম ও তার সহযোগী চট্টগ্রাম অটো টেম্পু শ্রমিক ইউনিয়নের জেলা সভাপতি/সাধারণ সম্পাদককে আইনের আওতায় আনার জোর দাবী জানিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

অন্যথায় মানববন্ধন ও সিএমপি কমিশনার কার্যালয় ঘেরাও সহ কঠোর কর্মসূচি ঘোষণার কঠোর হুশিয়ারী জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on linkedin
LinkedIn
Share on email
Email

সম্পকিত খবর